ঢাকা রাত ১:৩৪, রবিবার, ২রা আগস্ট, ২০২০ ইং, ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খালেদা দেশে ফিরছেন আজ

প্রায় তিন মাস পর লন্ডনে চিকিৎসা ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটিয়ে আজ বিকালে দেশে ফিরছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে দেশে ফিরছেন তিনি।

লন্ডন থেকে গতরাতে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। আজ বিকাল ৫টা ২০মিনিটে হজরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার।

বিমানে ওঠার আগে বিমান বন্দরে উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন খালেদা জিয়া। ভিআইপি টার্মিনাল থেকে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে এই বক্তব্য দেন তিনি। নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরের বাইরে দাঁড়িয়ে দলীয়প্রধানের বক্তব্য শুনেন।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিবিসিকে বলছেন খালেদা জিয়া গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং সে কারণেই চিকিৎসার পর তার ফিরে আসা দলকে উজ্জীবিত করবে।

দিকে দেশে ফিরেই বৃহস্পতিবার আদালতে যাবেন খালেদা জিয়া। বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবী ও দলের আইন বিষয়ক সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আদালত খালেদা জিয়ার জামিন বাতিল করেছেন। তাই বৃহস্পতিবার চেয়ারপারসন আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিনের পিটিশন দেবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেশে ফেরার দিন তাকে ব্যাপক অভ্যর্থনা জনানোর প্রস্তুতি নিয়েছে দলটি। দলটির নেতাকর্মীরা বিমানবন্দর থেকে গুলশান পর্যন্ত অবস্থান নেবে। এ লক্ষ্যে সার্বিক প্রস্তুতি নিতে দফায় দফায় বৈঠক করছে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনগুলো। দলীয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ওদিকে খালেদা জিয়ার দেশে ফেরা ও বিমানবন্দরে তাকে বরণ করতে নেতাকর্মীদের গণজমায়েতের প্রস্তুতিকে কেন্দ্র করে সোমবার রাত থেকে নেতাকর্মীদের বাসা-বাড়িতে অভিযান ও ধরপাকড় শুরু করেছে পুলিশ।

বাসে পেট্রলবোমা হামলার মামলায় গত ৯ অক্টোবর বিএনপির চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন কুমিল্লার জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন বেগম। এ ছাড়া ১২ অক্টোবর সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ঢাকায় দুটি আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। মানহানির মামলায় ঢাকা মহানগর হাকিম নূর নবী এবং জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিশেষ আদালতের বিচারক ড. আক্তারুজ্জামান এ দুটি পরোয়ানা জারি করেন।

বিএনপি মনে করে, রাজনৈতিক কারণেই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। অপরদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এ ব্যাপারে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গত ১৫ জুলাই চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। সেখানে তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আছেন। বড় ছেলে ও দলের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আগে থেকেই লন্ডনে অবস্থান করছেন।

এ বিভাগের আরও সংবাদ
//graizoah.com/afu.php?zoneid=3354715