ঢাকা রাত ৯:২১, শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘ভেতরের কথা ভেতরে থাকাই ভালো’

ঢাকা: মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, বয়স ৩৪, বর্তমান দলের সেরা পাঁচ ক্রিকেটারের একজন বলে বিবেচ্য। যিনি মিডল অর্ডারে ব্যাট করেন এবং হাত ঘুরিয়ে ভালো স্পিন বল করতে পারেন। ২০১৫ বিশ্বকাপে দুটি সেঞ্চুরি, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ম্যাচ জেতানো ইনিংস ছাড়াও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ নিদাহাস ট্রফির গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ দলকে জেতান।

তবে, ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের ড্রেসিংরুমকে ঘিরেও শোনা গিয়েছিল একটি বিতর্ক। গণমাধ্যমে খবর বেরিয়েছিল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে দলে চান না সহ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

এটিও বলা হয়েছিল যে, মাহমুদউল্লাহকে দল থেকে বাদ দেয়ার দাবি পূরণ হয়নি বলে টিম মিটিং থেকে উঠেই গিয়েছিলেন সাকিব। এসব ঘটনার ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো মন্তব্য মেলেনি। সাকিব তো নয়ই, মাহমুদউল্লাহও এ বিষয়ে কিছু বলেননি এতদিন।

এদিকে, বিশ্ব মহামারি করোনার লকডাউনের সময়টাতে ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকফ্রেঞ্জির সঙ্গে মাহমুদউল্লাহর ফেসবুক লাইভে উঠে আসে এই প্রসঙ্গ। সেখানেও মুখ খুলতে নারাজ তিনি। সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, দলের ভেতরের কথা ভেতরে থাকাই ভালো। তবে বিতর্কটা সত্য ছিল না- সে কথা জানাতে ভোলেননি মাহমুদউল্লাহ।

তিনি বলেন, আমি দুইটা জিনিস বলতে চাই। এক. ড্রেসিংরুম এমন একটা জায়গা যেটা আমাদের নিজস্ব। আমি প্রত্যেকের নিজের জায়গাকে আমরা সম্মান করি। এখানে অনেকেরই আবেগ জড়িত, অনেকের কষ্ট জড়িত,অনেকের ঘাম জড়িত। অনেকের রক্তও জড়িত হয়তোবা। অনেক সময় আমরা ফিল্ডিং করতে গেলে আমাদের হাত পা কেটেও যায়। আমি ড্রেসিংরুমের কথা কারও সঙ্গে শেয়ার করব না, কখনওই না। এটা আমি পছন্দও করি না। আমি এটা পছন্দও করি না আমার কোন টিমমেট করুক।

দ্বিতীয়ত হচ্ছে, কিছু যদি বাইরে আসেও সে জিনিসটা যেন প্রপারলি আসে। ভাঙা ভাঙা যেন কিছু না আসে। যে কথাগুলো বের হয়েছিল সত্য ছিল না, আমি আবারও বলছি। পুরোটা সত্য ছিল না এখানে। জিনিসটা অন্যভাবে উপস্থাপন করা হয়েছিল। যেটার কারণে আমি কিছুটা হতাশ ছিলাম। কথা হয়েছিল ইস্যুটা নিয়ে, সাকিব আর আমার মধ্যে। সাকিব আর আমার মধ্যে আসলে কিছুই হয়নি। কোন কথাই হয়নি। কথা কাটাকাটি আসবে কোথা থেকে?

বিজনেস বাংলাদেশ/ বিএইচ

এ বিভাগের আরও সংবাদ