ঢাকা বিকাল ৪:৩৬, সোমবার, ৩০শে মার্চ, ২০২০ ইং, ১৬ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

১ মিলিয়ন ইউরো দান করলেন গার্দিওলা

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সারা বিশ্ব আতঙ্কিত। স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। প্রতিদিনই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন অনেকেই। বাদ নেই ক্রীড়া জগতের তারকারাও।

করোনার বিপক্ষে লড়াইয়ের জন্য ১ মিলিয়ন ইউরো দান করেছেন ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলা। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে কোচিং করালেও গার্দিওলার বাড়ি বার্সেলোনায়। সেখানেই নিজের এই অর্থ দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। তার এই দান করা অর্থ বার্সেলোনার মেডিকেল কলেজ এবং আনহেল সোলের দানিয়েল ফাউন্ডেশনের কয়েকটি ক্যাম্পেইনের জন্য ব্যয় করা হবে। অর্থাৎ এই টাকায় মেডিকেল সরঞ্জাম কেনা হবে।

চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় প্রথমদিকেই আছে স্পেন। মূলত ইতালির পর ইউরোপের এই দেশেই সবচেয়ে বেশি মানুষ করোনায় মারা গেছেন। দেশটিতে সর্বশেষ প্রায় ৪০ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ২ হাজার ৬৯৬ জন। স্বাভাবিকভাবেই নিজ দেশের মানুষদের এই অসহায় পরিস্থিতি দেখে কষ্ট পাচ্ছেন ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলা।

এর আগে করোনার বিপক্ষে লড়াইয়ের জন্য ১ মিলিয়ন ইউরো দান করেছেন লিওনেল মেসি। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৯ কোটি ২১ লাখ টাকার এই অর্থ তিনি বার্সেলোনার একটি সর্ব সাধারণের হাসপাতালে দিয়েছেন। এই অর্থ মেসি বার্সেলোনার একটি ক্লিনিক ও আর্জেন্টিনার আরেকটি স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রে দিয়েছেন। তবে নিজ দেশ আর্জেন্টিনায় তিনি আলাদাভাবে দান করেছেন।

এদিকে নিজ দেশ পর্তুগালের লিসবন ও পোর্তো শহরের দুটি হাসপাতালে তিনটি আইসিইউ তৈরির জন্য অর্থ দিচ্ছেন জুভেন্টাস উইঙ্গার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও তার এজেন্ট জর্জে মেন্দেস। তারা দু’জনে মিলে এক মিলিয়ন ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় সাড়ে ৯ কোটি) দেবেন বলে জানায় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম। যেখানে লিসবনের সান্তা মারিয়া হাসপাতালে দুটি ওয়ার্ড ও পোর্তোর সান্তো অ্যান্তোনিও হাসপাতালে একটি আইসিইউ করা হবে। সান্তা মারিয়ার আইসিইউতে ১০টি বেড ও ভেন্টিলেটর থাকবে। আর সান্তো অ্যান্তোনিতে ১৫টি বেড ও একটি ভেন্টিলটরের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

গত সপ্তাহে নিজ দেশ জার্মানিতে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ১ মিলিয়ন ইউরো দান করেন বায়ার্ন মিউনিখের স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডভস্কি।

করোনা ভাইরাসে পুরো বিশ্বে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৩৫ হাজার ৩৯১ জন। মৃত্যুর সংখ্যা ১৯ হাজার ৬২০।

বিজনেস বাংলাদেশ/ মেহেদী

এ বিভাগের আরও সংবাদ