ঢাকা রাত ২:৩৮, বৃহস্পতিবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং, ১৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জনবলের সংকটে ১০৪টি রেলস্টেশন বন্ধ: রেলমন্ত্রী

জনবল সংকটে সারাদেশে ১০৪টি রেল স্টেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে নর্থবেঙ্গল জার্নালিস্ট ফোরামের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সত্তরের দশকে সারাদেশে রেলের লোকবল ছিল প্রায় ৭০ হাজারে। যা কমতে কমতে এখন এসে দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজারে। এ কারণে এখন পর্যন্ত সারাদেশে ১০৪টি রেল স্টেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আমাদের কারখানাগুলোতে যে শ্রমিক ছিলো, আমরা যাত্রীবাহী কোচ, ওয়াগন তৈরি করতাম, সেখানে এখন ৪ থেকে ৫ হাজার শ্রমিকের জায়গায় ১১শ’ ও ১২শ’ জনে নেমে এসেছে।

৮৬ সাল থেকে নতুন কোনো নিয়োগ দেওয়া হয়নি। ফলে অভিজ্ঞ লোকের অভাব দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের রেলপথের যে সক্ষমতা আছে সে হিসেবে বড় ট্রেন চলার কথা ১১টি।

মানে আপ-ডাউন মিলিয়ে ট্রেন চলার কথা ২২ টি কিন্তু ট্রেন চলে সব মিলিয়ে ৪২টি। রেলপথের সক্ষমতা অনুযায়ী রেলের সংখ্যা বেশি হওয়ায় শিডিউল বিপর্যয় হয়। এখানে আপাত দৃষ্টিতে কিছু করার না থাকলেও চেষ্টা করা হচ্ছে সমস্যা সমাধানের।

তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর এবং দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ , ভৈরব ব্রিজ, তিস্তা ব্রিজ তথা এই ব্রিজগুলোকে সংষ্কার করে রেলযোগাযোগ স্থাপন করা হয়েছিলো।

কিন্তু পরবর্তীতে যেসব সরকার এসেছে তারা রেলকে পুরোপুরি অবজ্ঞা করে সড়কের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়িয়েছে। রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে আমাদের একটা বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে রেল বিভাগ, সড়ক বিভাগ ও নদীপথ যে ভারসাম্যপূর্ণ একটি যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিলো সেটা আবার হবে।

রেলপথমন্ত্রী সুজন আরও বলেন, বর্তমান সরকার ২০১১ সালে আলাদা রেল মন্ত্রণালয় করার ফলে রেলে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। কমলাপুর থেকে টঙ্গী ৪ লেন হবে, টঙ্গী থেকে জয়দেবপুর ২টা লাইন হবে, আখাউড়া থেকে লাকসাম ডাবল লাইন হচ্ছে এটা হলে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ডাবল লেন হয়ে যাবে। বঙ্গবন্ধু ব্রিজে নতুন করে ডেটিকেটেট রেল ব্রিজ হবে।

ডুয়েল গ্যাস ডাবল লাইন হবে ব্রিজটি। আগামী মার্চের যেকোনো দিন প্রধানমন্ত্রী এটির ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করবেন। টেন্ডার প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে সম্পন্ন।

অনুষ্ঠানে নর্থ বেঙ্গল জার্নালিস্ট ফোরামের সভাপতি মোদাব্বের হোসেন, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, উপদেষ্টা নয়াদিগন্তের সম্পাদক মো. আলমগীর মহিউদ্দিন, শফিকুল করীম সাবু, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, ডিআরইইউ সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, ডিআরইউ সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদসহ অনেকেই।

বিজনেস বাংলাদেশ/এম মিজান

এ বিভাগের আরও সংবাদ