আজ বুধবার | ২২ মে, ২০১৯ ইং
| ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৬ রমযান, ১৪৪০ হিজরী | সময় : সন্ধ্যা ৭:০৯

মেনু

চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ

চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
সোমবার, ১৩ মে ২০১৯
২:৩৫ অপরাহ্ণ
40 বার

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, কোথাও পিস হিসেবে আবার কোথায় কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ। তবে পিস বা কেজি যেভাবেই বিক্রি হোক, সব বাজারেই তরমুজের দাম ব্যাপক চড়া।

যে ব্যবসায়ীরা কেজি দরে বিক্রি করছেন তাদের কাছ থেকে তরমুজ কিনতে প্রতি কেজির জন্য দিতে হচ্ছে ১২০ থেকে ১৫০ টাকা। আর পিস হিসেবে বিক্রি করা ব্যবসায়ীরা ছোট আকারের তরমুজ বিক্রি করছেন ২২০ থেকে ২৫০ টাকা। মাঝারি আকারের তরমুজের দাম নেয়া হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা।

বাজারে গিয়ে দেখা যায়, তরমুজ বিক্রি করছেন বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী। কেউ ক্রেতা আকৃষ্ট করতে তরমুজ ঝুলিয়ে রেখেছেন। আবার কোনো কোনো ব্যবসায়ী ভ্যানগাড়িতে, ঝুড়িতে রেখে তরমুজ বিক্রি করছেন।

ভ্যানগাড়িতে করে বিক্রি করা মো. কামাল হোসেনের কাছে তরমুজের দাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেটিই নেন একদাম ২২০ টাকা। কোনো দরদাম করা যাবে না। তবে যেটা খুশি আপনি বেছে নিতে পারবেন।

এরপর ঝুড়ির ভেতর থেকে বড় সাইজের একটি তরমুজ নিয়ে পাশের দোকানে মেপে দেখা যায়, তরমুজটির ওজন ১ কেজি ৪৫০ গ্রাম। অর্থাৎ দেড় কেজিরও কম একপিস তরমুজের দাম ২২০ টাকা। সে হিসাবে প্রতি কেজি তরমুজের দাম পড়ছে ১৫২ টাকা।

তরমুজের এত দাম কেন জানতে চাইলে এই ব্যবসায়ী বলেন, আমাদের কিছু করার নেই। বাদামতলীতে তরমুজের ব্যাপক দাম। এ কারণে আমাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। রোজা শুরুর পর থেকে প্রায় প্রতিদিনই তরমুজের দাম বাড়ছে। তাছাড়া আড়তে গেলে শোনা যায় এবার তরমুজের ফলনও কম হয়েছে। তাই আড়তে আমদানি (সরবরাহ) কম। এ কারণে দাম বাড়তি।

কামাল হোসেন যেখানে ভ্যানগাড়িতে তরমুজ বিক্রি করছিলেন তার থেকে অল্প কয়েক গজ দূরেই স্থায়ী ফলের দোকান বসিয়ে ব্যবসা করছেন মো. মাসুম। এই দোকানে জালে ভরে একাধিক তরমুজ ঝুঁলিয়ে রাখতে দেখা যায়।

তরমুজের দাম জানতে চাইলে মাসুম বলেন, একপিসের দাম ৪০০ টাকা। এ সময় এই তরমুজের ওজন কতোটুকু হবে? এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, প্রায় আড়াই কেজি হবে। তরমুজের এত দাম? এমন কথা বলতেই এই ব্যবসায়ী বলেন, নিলে নেবেন, না নিলে না নেবেন। আপনাকে তো জোর করে দিচ্ছি না।

এরপর বলেন, ভাই কি করবো বলেন, আড়তে অনেক দাম। প্রতিদিন দাম বাড়ছে। বাদামতলী গেলে যে দাম চায়, শুনে আমাদেরও মাথা গরম হয়ে যায়। আবার আমাদের কাছে হরেক কিসিমের ক্রেতা আসে। কেউ কেউ আছে খালি দাম জিগায়। আর কয় এত দাম। কতক্ষণ এসব ভালো লাগে বলেন? বাড়তি দামে কিনে তো আমরা কম দামে বিক্রি করতে পারি না।

 

বিবি/এমএ

রবিবারেই থেমে যাবে বৃষ্টি
২১ অক্টোবর ২০১৭ 350968 বার

রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে হবে
২৩ অক্টোবর ২০১৭ 350897 বার

সুষমা স্বরাজ ঢাকায়
২২ অক্টোবর ২০১৭ 349305 বার

সবার আগে বাংলাদেশ: সুষমা
২৩ অক্টোবর ২০১৭ 280082 বার