আজ রবিবার | ২৫ আগস্ট, ২০১৯ ইং
| ১০ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৩ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | সময় : বিকাল ৪:১১

মেনু

কোটা আন্দোলনের নামে শিক্ষাঙ্গনে অস্থিতিশীলতা মেনে নেয়া হবে না: সোহাগ

কোটা আন্দোলনের নামে শিক্ষাঙ্গনে অস্থিতিশীলতা মেনে নেয়া হবে না: সোহাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
সোমবার, ০৯ জুলাই ২০১৮
১০:১১ অপরাহ্ণ
61470 বার

কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে শান্ত শিক্ষাঙ্গনকে অশান্ত বা কোন ধরনের অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা কোনভাবেই মেনে নেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। তিনি রোববার বিজনেস বাংলাদেশের সঙ্গে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে এ কথা জানান।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৮তম সভাপতি নন্দিত এই ছাত্রনেতা বর্তমান ছাত্র রাজনীতি, চলমান ঘটনাবলী ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা সম্পর্কে কথা বলেছেন। ছাত্রলীগ সবসময়ই ছাত্র সমাজের যেকোন ন্যায়সঙ্গত ও ন্যায্য দাবির সাথে ছিল, আছে এবং থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের শুরু থেকে ছাত্রলীগ নিবিড়ভাবে তা পর্যবেক্ষণ করেছে। কিন্তু যখন দেখলাম, একটি গোষ্ঠী এই আন্দোলনের কাঁধে ভর করে শিক্ষাঙ্গনগুলোকে অস্থিতিশীল করে তুলছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি স্যারের বাসভবনে ন্যাক্কারজনক হামলা চালিয়ে তাকে হত্যার অপচেষ্টা করেছে, ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ করে সেশনজট সৃষ্টির চেষ্টা করছে এবং এই আন্দোলনকে পুঁজি করে সরকার পতনের অপচেষ্টা ও ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে তখন আর কোনভাবেই এই আন্দোলনকে স্বাভাবিক আন্দোলন বলা যায় না।

আর ছাত্রলীগ এই আন্দোলনের সাথে থাকতে পারে না। সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ‘আপনারা লক্ষ্য করবেন, সরকার আন্দোলনকারীদের দাবি মেনে নেয়ায় দেশবিরোধী বিএনপি-জামাত-চক্রান্তকারীদের গরম ভাতে ছাই পড়েছে। তাই তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে সাধারণ ছাত্র নামধারী কিছু দিকভ্রান্ত যুবককে দিয়ে দেশে নৈরাজ্য ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। তারা ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ অশ্লিল ভাষায় কটুক্তি ও আজেবাজে মন্তব্য করছে এবং প্রধানমন্ত্রীকে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। এটা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

ছাত্র সমাজ এটা কোনভাবেই মেনে নেবে না।’ এ ধরনের ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তকারীদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে কোটা বাতিলের ঘোষণা দেয়ার পরও যারা তাঁকে হত্যার হুমকি দেয়, তাঁকে নিয়ে নোংরা কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করে তারা আসলে কারা? তাদের আসল উদ্দেশ্যই বা কি? আসলেই কি তারা শুধুই কোটা সংস্কার বা বাতিল চায়? না অন্য কোন উদ্দেশ্য নিয়ে তাদের রাস্তায় নামানো হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা উচিত। এদের গ্রেফতার করে অভিলম্বে আইনের আওতায় আনতে হবে এবং এদের পেছনে কারা ইন্ধন দিচ্ছে তাদের খুঁজে বের করতে হবে। ছাত্রলীগের গৌরবময় ইতিহাস তুলে ধরে তিনি বলেন, ১৯৪৮ সালের ৪ঠা জানুয়ারি জাতির পিতার হাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠার পর ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৫৪’র যুক্তফ্রন্ট, ৬২’র শিক্ষা কমিশন আন্দোলন, ৬৬’র ৬ দফা, ৬৯’র গণঅভ্যূত্থান, ৭০’র নির্বাচন এবং একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধসহ পরবর্তী প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগ সামনের সারিতে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে।

ছাত্রলীগের এই গৌরবময় ঐতিহ্যকে ম্লান করে কলঙ্ক কালিমা লেপন করার জন্যে ইদানিং একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে। কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের নিজেদের অভ্যন্তরীন দ্বন্ধ ছাত্রলীগের উপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন, এই সংগঠন কখনো কোন ধরনের চক্রান্তের ফাঁদে পা দেবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হ্যানরী কিসিঞ্জারের অপবাদ ‘তলাবিহীন ঝুঁড়ি’ থেকে বাংলাদেশ এখন মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়েছে উল্লেখ করে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নে ইর্ষান্বিত হয়ে রাজনীতি থেকে বিতাড়িত দুর্নীতিবাজ খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য একটি অশুভ শক্তি কোটা বিরোধী আন্দোলনে ইন্ধন দিচ্ছে। সম্প্রতি রুহুল কবির রিজভীসহ বিএনপি নেতাদের বক্তব্য থেকে এটাই স্পষ্ট হয়েছে। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন-‘মুক্তিযোদ্ধাদের জন্যই আমরা দেশ পেয়েছি।’

তাদের রক্তের উপরই আজ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত। সরকারি চাকুরীতে তাদের সন্তান ও প্রজন্মকে একটু বিশেষ সুবিধা দেতেই হবে। এটা যারা মানতে পারবে না, তাদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। আর এটাকে নিয়ে কেউ যদি ক্যাম্পাসে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করতে চায় এবং ক্যাম্পাসে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে চায় তা অবশ্যই মেনে নেয়া হবে না। ছাত্রলীগ দেশের ছাত্রসমাজকে সাথে নিয়ে এদের প্রতিহত করবে। জঙ্গিরা যেভাবে শেষ অস্ত্র হিসেবে নারীদের ব্যবহার করে, সেভাবে কোটা আন্দোলনেও ছাত্রীদের ব্যবহার করা হচ্ছে। কোটা আন্দোলনকারীদের কাজ ও আচরণ জঙ্গিবাদীদের মতোই’। ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের ভিসির এই বক্তব্য সম্পর্কে তিনি বলেন, একটি অশুভ শক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করার অপচেষ্টা করছে।

তারা সাধারণ ছাত্রদের ব্রেণ ওয়াশ করে তাদের উস্কানী দিচ্ছে। অশুভ শক্তির এধরনের অপতৎপরতা ছাত্রসমাজ কোনভাবেই বরদাশত করবে না। তিনি বলেন, জামাত-বিএনপি দেশের অন্য সব জায়গায় ব্যর্থ হয়ে এখন বিশ্ববিদ্যালয়কে বেছে নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যলয়ের সাধারণ ছাত্র নামধারী কিছু দিকভ্রান্ত যুবক ছাত্রদের কাঁধে ভর করে এরা সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করতে চাইলে ছাত্রলীগ কোনভাবেই তা মেনে নেবে না। সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, সরকারি চাকুরীতে কোটা সংস্কার বা বাতিল এটা সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের বিষয়। কিন্তু এটাকে পুঁজি করে বিশ্ববিদ্যলয়ে সন্ত্রাসবাদ কায়েমের কোন সুযোগ নেই এবং ছাত্রলীগ তা কোনভাবেই হতে দেবে না।

রবিবারেই থেমে যাবে বৃষ্টি
২১ অক্টোবর ২০১৭ 483875 বার

সুষমা স্বরাজ ঢাকায়
২২ অক্টোবর ২০১৭ 482117 বার

রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে হবে
২৩ অক্টোবর ২০১৭ 447176 বার

সবার আগে বাংলাদেশ: সুষমা
২৩ অক্টোবর ২০১৭ 351931 বার