ঢাকা রাত ৮:৪৯, বৃহস্পতিবার, ৯ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২৬শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

করোনা : জুমা নিয়ে যে বার্তা দিলেন আজহারী

করোভাইরাস আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বে। বিশ্বের বেশ কয়েকটি মুসলিম রাষ্ট্রে মসজিদে জুমাসহ অন্যান্য নামায বন্ধ করেছে। এ ভাইরাস থেকে বাঁচতে নানা ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করছে বিভিন্ন দেশের সরকার। প্রাণঘাতি এ ভাইরাত ইতোমধ্যে বাংলাদেশে একজনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। আক্রান্ত হয়েছে প্রবাসীসহ ১৭জন।

করোনোভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে জনপ্রিয় বক্তা ও ইসলামী চিন্তাবিদ মিজানুর রহমান আজহারী স্ট্যাটাস ও লাইভে এসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরামর্শ দিয়ে আসছেন। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ১২টার দিকে ফেসবুকের তার ভেরিফাইড পেইজে ‘নিরাপদে থাকুন আপনারা নিরাপদে থাকুক আমার বাংলাদেশ’ শিরোনামে একটি স্ট্যাটাস দেন।

ওই স্ট্যাটাসে তিনি উল্লেখ করেন, ‘এই মূহুর্তে আমরা একটি ক্রুসাল মোমেন্ট পার করছি। যেহেতু বাংলাদেশ একটি জনবহুল দেশ। তাই বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়লে সেটা সামাল দেয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘বহির্বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশের মতো যেহেতু রাস্ট্রীয় ভাবে জুমু’আর সালাত বন্ধের ঘোষণা এখনো আসেনি তাই, আগামীকাল জুমু’আর সালাতে অংশগ্রহনের ক্ষেত্রে সতর্কতামূলক নিম্নের পরামর্শগুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন।’

সম্মানিত খতীব মহোদয়গণের প্রতি আজহারী পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘ আলোচনা ও খুতবা সংক্ষিপ্ত করুন। স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে চিকিৎসকদের গাইডলাইন গুলো শেয়ার করুন। ইসলামে পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব নিয়ে আলোকপাত করুন ও তাওবা, ইস্তিগফার ও পাপের জন্য সিজদায় কাঁদতে উদ্বুদ্ধ করুন।

মসজিদ কর্তৃপক্ষের প্রতি তিনি পরার্শ দেন, ‘ডেটল বা সেভলন দিয়ে মসজিদের ফ্লোর মুছে রাখুন এবং ওজু খানায় সাবান বা হ্যান্ড স্যুপ রাখুন ‘

একইভাবে মুসল্লিদের প্রতি আজহারী পরামর্শ দেন, ‘নিকটবর্তী মসজিদে জুমার সালাত আদায় করুন। সাথে করে মাস্ক, টিস্যু ও জায়নামাজ নিয়ে যান। আপাতত মুসাফাহা করা থেকে বিরত থাকুন এবং জ্বর, কাশি, সর্দি ইত্যাদিতে আক্রান্ত থাকলে ঘরে জোহরের নামাজ পড়ুন।’

উল্লেখ্য, বৈশ্বিক মহামারি ‍করোনাভাইরাসেআক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৯৬৭ জনে। এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের ২ লাখ ১৯ হাজার ২৪০ জন। এদের মধ্যে বর্তমানে ১ লাখ ২৪ হাজার ৫২৮ জন বর্তমানে চিকিৎসাধীন এবং ৬ হাজার ৮১৫ জন আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন।

বিজনেস বাংলাদেশ/ এ আর

 

এ বিভাগের আরও সংবাদ