আজ বৃহস্পতিবার | ২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ইং
| ৯ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৩ সফর, ১৪৪১ হিজরী | সময় : রাত ২:১৮

মেনু

আইএলওকে জানানো হবে আজ

আইএলওকে জানানো হবে আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭
১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ
337 বার

শ্রম আইন সংশোধনসহ বাংলাদেশের শ্রম খাত নিয়ে বিশ্ব শ্রম সংস্থা (আইএলও) যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছিল তা বাস্তবায়নের অগ্রগতি সম্পর্কে সংস্থার এক্সপার্ট কমিটিকে জানানো হবে আজ। মঙ্গলবার আইন মন্ত্রণালয়ে শ্রম আইন সংশোধনসহ শ্রমখাতের বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য জানান। আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুও উপস্থিত ছিলেন। দেশের স্বার্থ সমুন্নত রেখেই আইএলও’র পর্যবেক্ষণ বাস্তবায়নে সভায় শ্রম আইন সংশোধনসহ কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানানোর আগে এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে চাননি বাণিজ্য ও আইনমন্ত্রী। আন্তর্জাতিক মানে উত্তীর্ণ না হওয়ায় বাংলাদেশের শ্রমমান ও শ্রমিকের অধিকার নিয়ে ১০৫তম আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে বিশেষ অনুচ্ছেদ যুক্ত করা হয়েছিল। ওই অনুচ্ছেদে শ্রম আইনে সংশোধনী আনা, ইপিজেড আইনে ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার পুরোপুরি নিশ্চিত করা, ট্রেড ইউনিয়নবিরোধী বৈষম্যের তদন্ত করা এবং ইউনিয়নের নিবন্ধন স্বচ্ছতা ও দ্রুততার সঙ্গে করার কথা বলা হয়েছিল। গত জুনে ১০৬তম আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে বিশেষ অনুচ্ছেদ বাস্তবায়নের অগ্রগতি সম্পর্কে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) মহাপরিচালক গাই রাইডারকে অবহিত করেন। ওই বৈঠকে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুও উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের পদক্ষেপের আলোকে বিশেষ অনুচ্ছেদ তুলে নেয় আইএলও। সঙ্গে কিছু পর্যবেক্ষণ দেয় সংস্থাটি। বাণিজ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত জুন মাসে আইনমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল আন্তর্জাতিক শ্রম কনফারেন্সে যোগ দিয়েছিলেন। সেখানে শ্রম প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও বাণিজ্য ও শ্রমিক প্রতিনিধিরা ছিলেন। সেখানে স্পেশাল প্যারাগ্রাফ ফোর, এটার কঠিন একটা অবস্থা ছিল। এটা অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে আমরা বোঝাতে সক্ষম হয়েছি। এই বিশেষ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহার হওয়ায় আমাদের সামনে কোন সমস্যা ছিল না। কিন্তু আমাদের কিছু ক্ষেত্রে সংশোধন আনব। সেই সংশোধনগুলো আনার জন্য আমরা বসেছিলাম।’ তিনি বলেন, ‘সবার সঙ্গে আলোচনা করে আমরা একটা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি। আশা করি আজ বুধবার জেনেভাতে যে কমিটি অব এক্সপার্ট বসবে, সেখানে আমাদের এই সিদ্ধান্তগুলো আমরা জানিয়ে দেব। তাতে করে ভবিষ্যতে আর কোন সংকট রইল না।’ কী কী সংশোধন আনা হচ্ছে জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এথনই তা বলতে চাই না। কারণ এটা নিয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করব। সেটা আমরা এখানে ঘোষণা করছি না। কিন্তু আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস আমরা তাদের (আইএলও) সন্তুষ্ট করতে পারব।’ ‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন আমাদের একটি বড় বাজার, আমাদের সিংহভাগ রফতানি ইউরোপীয় ইউনিয়নে যায়। তারাও আমাদের এই সিদ্ধান্তে খুশি হবেন। আমরা তাদের কাছ থেকে জিএসপি পাই। সকল মহলই আজকে আমাদের সিদ্ধান্তে আকৃষ্ট হবেন।’ ইপিজেডে ট্রেড ইউনিয়ন চালুর অনুমোদন দিয়ে আইনে সংশোধনী আনার কথা বলা হচ্ছিল, এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ইপিজেডে ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন আছে। এটা ট্রেড ইউনিয়নের মতোই। সেখানে (ইপিজেড আইন) কিছু সংশোধনী আমরা আগেই করেছি।’ ‘শ্রম আইন ও ইপিজেড আইনে তেমন কোন পার্থক্য থাকবে না। যেটুকু পার্থক্য থাকার দরকার সেটুকু থাকবে, তাতে তাদের আইএলও আপত্তি রইল না’ বলেন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ তোফায়েল।আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বিশেষ প্যারাগ্রাফ যখন প্রত্যাহার করা হয় তখন আইএলও আইএলসিতে (আন্তর্জাতিক শ্রম কনফারেন্সে) কিছু পর্যবেক্ষণ ছিল যে শ্রম ও ইপিজেড আইনের এই এই জায়গায় পরিবর্তন আনতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘আজকে আমরা সব স্টেক হোল্ডারদের নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেছি এবং আমরা সন্তোষজনক একটা জায়গায় পৌঁছেছি। এগুলো সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের জানাতে হবে। এর আগে আমরা এটা সম্পর্কে বলতে চাচ্ছি না। আগামীকাল আইএলও কমিটি অব এক্সপার্টকে এ বিষয়ে জানিয়ে দেয়া হবে। আমি এটুকু বলতে পারি, সমস্যা যেখানে ছিল আমরা ঠিক সমস্যার জায়গায় গিয়ে তা সমাধানে বা প্রতিকারে যেসব পরিবর্তন দরকার তা এনেছি। যেখানে পরিবর্তন করলে আমাদের অসুবিধা হবে সেখানে আমরা পরিবর্তন করিনি।’ আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ইপিজেডে সব সময়ই ট্রেড ইউনিয়ন ছিল যেটার নাম ছিল ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। ওটাই আছে, নতুন করে ট্রেড ইউনিয়ন হবে এমন কিছু নেই।’ এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এখনও ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন থাকবে। এই নামেই তারা কার্যক্রম পরিচালনা করবে। যখন ইপিজেড হয় তখন তো কথা ছিল, কোন ট্রেড ইউনিয়ন হবে না। আইএলও’র সঙ্গে আলাপ করেই আমরা ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন করেছি।’ তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশে অ্যাকর্ড আছে, অ্যালায়েন্স আছে। এসব ব্যাপারেও আমরা যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছি। বাংলাদেশের স্বার্থকে সংরক্ষণ করেই আজকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সংশোধিত শ্রম আইন ও ইপিজেড আইন কবে নাগাদ সংসদে পাস হবে- জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, এই দুটি আইন সংশোধনে প্রস্তাব আনবে শ্রম মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। আমি এটুকু বলতে পারি, এটা অনেক দূর এগিয়ে গেছে। সংসদের আগামী শীতকালীন অধিবেশনে আমরা আইন দুটি উপস্থাপন করতে পারব।’

চট্টগ্রামে ইয়াবাসহ যুবক আটক
২১ অক্টোবর ২০১৭ 35484 বার

মুখবন্ধ বস্তায় পাওয়া গেল শিশু
০১ নভেম্বর ২০১৭ 35464 বার

ফেনীতে ৫ ভুয়া ডিবি পুলিশ আটক
০৯ নভেম্বর ২০১৭ 35427 বার

এক নজরে এপাক ফাউন্ডেশন
১৭ নভেম্বর ২০১৭ 35360 বার

সৈয়দপুরে মাদকসেবীর কারাদণ্ড
১৮ অক্টোবর ২০১৭ 35331 বার

খুলনায় কৃষককে কুপিয়ে হত্যা
১৮ অক্টোবর ২০১৭ 35327 বার